প্রযুক্তি

ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়ানোর উপায়

ইউটিউবে কীভাবে সাবস্ক্রাইবার বাড়ানো যায়, সে বিষয়ে জানতে আমরা অনেকেই আগ্রহী। কারণ, ভিউ ও সাবস্ক্রাইবার ছাড়া ইউটিউবে ভিডিও আপলোড করে কোন প্রকার লাভ পাওয়া যায়না।

সাবস্ক্রাইবার বিষয়টিকে আপনি চাইলে ইউটিউব চ্যানেলের প্রাণ বলতে পারেন। আপনার চ্যানেলে যত বেশি সাবস্ক্রাইবার থাকবে, এর জনপ্রিয়তাও তত বেশি হবে।

এখন প্রশ্ন হলো, কীভাবে আপনার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার ও ভিউজের সংখ্যা বৃদ্ধি করবেন?

ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়ানোর উপায়
ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়ানোর উপায়

ইউটিউব চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বাড়ানোর উপায়

SEO – সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশন

বেশীরভাগ নতুন ইউটিউবার তাদের চ্যানেলের ভিডিওগুলোকে SEO না করেই পাবলিশ করে দেয়। এটি সবচেয়ে বড় একটি ভুল কাজ। নতুন চ্যানেলের ক্ষেত্রে ভিডিওতে প্রোপার SEO না করলে আশানুরূপ সাবস্ক্রাইবার পাওয়া বেশ মুশকিল।

ইউটিউবে audience পাওয়ার ক্ষেত্রে Youtube SEO খুবই গুরুত্বপূর্ণ। SEO হচ্ছে Search Engine Optimization, যা না করলে শুরুতে হয়তো আপনি Randomly Promote হবেন। কিন্তু আশানুরূপ সাবস্ক্রাইবার পাবেন না।

রেগুলারিটি মেনটেইন

সব সময় চেষ্টা করুন রেগুলারিটি মেনটেইন করতে। এটি একটি ইউটিউব চ্যানেলের Growth-এর জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

টিভি চ্যানেলগুলোর মতো আপনাকেও রেগুলারিটি মেনটেইন করতে হবে। যদি আপনি প্রতি সপ্তাহে ১টি করে ভিডিও আপলোড করে থাকেন, তবে তা নিয়মিত করুন। নিয়মিত থাকার সুবিধা হচ্ছে, আপনার চ্যানেলের দর্শকেরা আগে থেকেই জেনে যাবে, ঠিক কোন সময় আপনার চ্যানেলে ভিডিও পাওয়া যাবে। 

মানসম্মত কনটেন্ট তৈরি

একটি চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে জরুরি হচ্ছে কনটেন্ট। সবসময় চেষ্টা করুন Valuable Content তৈরি করতে। আপনার চ্যানেলের Growth বাড়াতে এটি খুবই কার্যকর। গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ে মানসম্মত কনটেন্ট তৈরি করুন, যেন দর্শকেরা আপনার আপলোড করা ভিডিও থেকে নতুন কিছু শিখতে পারে। তাহলে আপনার চ্যানেলেও সাবস্ক্রাইবার ও ভিউয়ারের সংখ্যা বাড়বে। 

নির্দিষ্ট নিশে কাজ করা

নির্দিষ্ট একটি Niche কাজ করুন। ইউটিউবের জন্য এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখন প্রশ্ন আসতে পারে নিশ আসলে কী? নিশে বলতে কোনো একটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্র বিষয় নিয়ে কাজ করাকে বোঝায়, যেমনঃ স্পোর্টস, টেকলোনজি, ভ্লগ ভিডিও ইত্যাদি। নিশ পরিবর্তন না করাই ভালো। নিশ পরিবর্তন করলে আপনার ইউটিউব চ্যানেলটি growth পাবে না। তাই চেষ্টা করুন নির্দিষ্ট একটি নিশকে টার্গেট করতে।

গিভওয়ে

Giveaway হচ্ছে আরেকটি টিপস, যা অনেক বড় বড় YouTuber ফলো করেন। আপনি চাইলে আপনার দর্শকদের জন্য ছোটখাটো কিছু পুরস্কারের ব্যবস্থা করতে পারেন। সে ক্ষেত্রে পুরস্কারের লোভে আপনার ভিডিওগুলো একটু হলেও মনোযোগ সহকারে দেখবে দর্শকেরা। Mobile Review করা চ্যানেলগুলোর মতো আপনি কিছুদিন পরপর Giveaway-এর আয়োজন করতে পারেন। 

কমেন্টের জবাব দেয়া

চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করার পর ভিডিও দেখে কেউ কমেন্ট করলে তার উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করুন। আপনার ভিউয়ারদের সঙ্গে মতবিনিময়ের চেষ্টা করুন। এতে চ্যানেলটিকে নিজের বলে মনে করবে সেই ভিউয়ার। এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে আপনার চ্যানেলের ওপর।

এ ছাড়া ইউটিউবে ভালো ভিউ ও সাবস্ক্রাইবার পেতে আপনার ভিডিওটির থাম্বনেইল হিসেবে একটি ভালো ছবি দিন, ফেসবুকে শেয়ার করুন আপনার ভিডিওগুলো, চ্যানেলের ওয়েবসাইট খুলুন, ভিডিওর বিজ্ঞাপন দিন এবং পারলে চ্যানেলের একটি ট্রেইলার তৈরি করুন। এগুলো বেশ কাজে দেয়।

এই টিপসগুলো ফলো করলে আমরা আশা করি আপনি খুব সহজেই আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ভিউয়ার ও সাবস্ক্রাইবার পাবেন। এ ছাড়া আপনি চাইলে আরও বিভিন্ন পদ্ধতি ফলো করে আপনার ইউটিউব চ্যানেলকে জনপ্রিয় করে তুলতে পারেন।

সহজ ভাষায়

ইসলাম ও বিশ্বতথ্য জানুন সহজ, সাবলীল বাংলায়!

সম্পর্কিত আর্টিকেল

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button

অ্যাডব্লকার ডিটেক্ট হয়েছে!

মনে হচ্ছে আপনি অ্যাড ব্লকার ব্যবহার করছেন। আমাদের সাইট ভিজিট করার জন্য আপনাকে অ্যাড ব্লকার বন্ধ করতে হবে। যদি অ্যাডব্লকার ব্যবহার না করেন, তাহলে পেজটি রিফ্রেশ করুন।